রবিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২৩

অফিস সহায়ক ও অফিস সহকারী পদের মধ্যে পার্থক্য কি? অফিস সহায়ক ও সহকারীরর কাজ, বেতন

অফিস সহায়ক ও অফিস সহকারী পদের মধ্যে পার্থক্য কি?

অফিস সহায়ক পদের কাজ, কাজের পরিধি, কাজের ধরণ, বেতন,
 
এই বিষয়টা নিয়ে আমাদের মধ্যে অনেক কনফিউশন রয়েছে,
 আজকে আমরা চেষ্টা করব এই বিষয় নিয়ে একদম ক্লিয়ার ধারণা দেয়ার জন্য।
 তো চলুল শুরুকরা যাক..

  অফিস সহায়ক ও অফিস সহকার কাছাকাছি শব্দ হলেও কর্মদায়িত্ব বা কাজের ধরণ সম্পূর্ণ ভিন্ন, তাছাড়া দুটি পদের গ্রেডেও বিস্তর তফাৎ রয়েছে।

 ইংরেজীতে অফিস সহায়ক Office Support Staff,
 অফিস সহকারী Office Assistant.


অফিস সহায়ক কত গ্রেডের চাকরি ও বেতন কত টকা?

 অফিস সহায়ক ২০ তম গ্রেডের চাকরি, 
 বেতন স্কেল ৮২৫০-২০০০১০ টাকা এবং চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী অর্থাৎ চাকরির শুরুতে এদের প্রারম্ভিক মূল বেতন ৮২৫০ টাকা। অন্য দিকে একজন অফিস সহকারী বা অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক ১৬ গ্রেডের একজন তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী।
 যাদের বেতন স্কেল ৯৩০০-২২৪৯০ টাকা, চাকরির প্রারম্ভে মূল বেতন ৯৩০০ টাকা।

 অফিস সহায়ক ও অফিস সহকারী পদের কর্মচারীদের কাজ কি? 
 সরকারি চাকুরী এবং সাধারণ প্রশাসন বিভাগ নিয়ন্ত্রণ শাখা, শাখা ১ নম্বর এস,জি, এ/আর আই/আই এস-135/69/252(350), তারিখ: ২৯ অক্টোবর ১৯৬৯ এর মোতাবেক সরকারি পিয়নদের দায়িত্ব ও কর্তব্য নিম্নরূপ নির্ধারণ করা হয়েছে।

অফিস সহায়ক এর দায়িত্ব ও কর্তব্য গুলো ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশ
১। অফিসের আসবাবপত্র ও রেকর্ডসমূহের সুন্দরভাবে বিন্যাস সাধন করা এবং পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা।
২। অফিসের ফাইল এবং কাগজপত্র নির্দেশক্রমে একস্থান হইতে অন্যস্থানে কিংবা অন্য অফিসে স্থানান্তর করা।
 ৩। হালকা আসবাবপত্র অফিসের মধ্যে একস্থান হইতে অন্যস্থানে সরানো।
 ৪। গোপন অথবা গুরুত্বপূর্ণ ফাইলসমূহ স্টিলের বাক্স বন্দী করিয়া নির্দেশক্রমে এক অফিস হইতে অন্য অফিসে নেয়া।
 ৫। কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণকে পানীয় জল পান করাবেন।
 ৬। তাহারা অফিসের সমস্ত মনিহারী ও অন্যান্য দ্রব্যাদি সংরক্ষণের জন্য দায়ী থাকিবেন।
 ৭। তাহারা তাদের জন্য নির্ধারিত ইউনিফর্ম পরিধান করিয়া অফিসে আসিবেন।
 ৮। তাহারা স্ব স্ব শাখা এবং কর্মকর্তার নির্দেশিত কাজ করিবেন।
 ৯। তাহার দর্শণপ্রার্থী এবং পাবলিকের সহিত ভদ্রতা বজায় রাখিয়া ব্যবহার করিবেন 
১০। তাহারা কর্মকর্তার পক্ষে ব্যাংকে চেক জমা এবং টাকা তুলিবেন।
 ১১। তাহারা অফিস সময়ের ১৫ মিনিট পূর্বে অফিসে আসিবেন এবং সহকারী সচিব/প্রধান সহকারীর নিকট আগমনের রিপোর্ট করিবেন।
 ১২। তাহারা বিনা অনুমতিতে কোন সময় অফিস ত্যাগ করিবেন না। অফিস সহকারী এর দায়িত্ব ও কর্তব্য

 ০১। রেজিস্টার মেইনটেইন বা হিসাব কিতাবের কাজ।
 ০২। সকল প্রকার প্রশাসনিক বা অন্য যে কোন চিঠি পত্র বা ডকুমেন্ট টাইপিংয়ের কাজকরণ।
 ০৩। প্রতিষ্ঠান প্রধানের সময়ে সময়ে অর্পিত দায়িত্ব পালন।

 অফিস সহকারী  দায়িত্ব  বা কাজঃ

০১। কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যাতায়াতের লগবই পর্যালোচনা করে গাড়ি ভাড়ার নোট, চিঠি তৈরি ও বিতরণ, গাড়ি ভাড়া সংগ্রহ করে চালান তৈরি করে হিসাব শাখায় প্রেরণ; 

০২। যাবতীয় নথি বা ফাইল সর্টিং করে র‌্যাকে সুসজ্জিতকরণ, জীর্ণ ও পুরাতন ফাইল কভার পরিবর্তন করে নতুন ফাইল কভার স্থাপন করে ফাইলের উপর কম্পিউটারে কম্পোজ করে নথির বিষয়, নথি নম্বর, পূর্ববর্তী নথির সুত্র, নথি বন্ধের তারিখ ইত্যাদি প্রয়োজনীয় বিষয় লিপিবদ্ধকরণ;

 ০৩। বিভিন্ন ফাইল লগবই ইত্যাদি বাধাই করার ব্যবস্থাকরণ; 

০৪। প্রশাসন ও হিসাব শাখার সকল আসবাবপত্র, ফাইলপত্র, অফিস সামগ্রী, সিলিং ফ্যান ইত্যাদি কর্তব্যরত অফিস সহায়ক/পরিচ্ছন্নতা কর্মী দ্বারা নিয়মিত পরিস্কারকণ; 

০৫। টেন্ডার সিডিউল তৈরি ও বিক্রয়, টিইসি সদস্য বরাবর পত্র প্রেরণ, দরপত্র মূল্যায়ন কমিটির প্রতিবেদন ও কার্যাদেশ তৈরি;

 ০৬। অধিকাল ভাতার বিল, সকল প্রকার বিলের ব্যয় মঞ্জুরী তৈরি ও উপস্থাপন। 

০৭। লিভারেজ সংক্রান্ত কম্পিউটার সংক্রান্ত কাজ ও বিল তৈরিকরণের কাজ।

 ০৮। এছাড়াও সময়ে সময়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশিত দায়িত্ব পালন; অফিস সহায়ক পদে চাকরির জন্য এসএসসি পাশের যোগ্যতা প্রয়োজন পড়ে অন্য দিকে অফিস সহকারী পদে চাকরির জন্য উচ্চ মাধ্যমিক পাশের প্রয়োজন পড়ে।



আশা করছি সকল বিষেয়ে ভাল করে বুঝেছেন।
ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য।

সরকারি চাকরির তালিকা ২০২৩ / govt job circular 2023

 

  চলমান সকল সরকারি চাকরির

 নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির তালিকা ২০২৩

 


   চাকরি প্রার্থীদের জন্য সর্তক বার্তা

২০২৩ সালে বড় কোনো সার্কুলার আর প্রকাশ করা হবে না তাই যে কোনো সার্কুলার আসুক পদ সংখ্যা কত তা না দেখে আবদেন করে রাখুন কাজ দেবে।

 

 

সার্কুলারের তালিকা প্রকাশের আগে কিছু

কথা

নিচের সার্কুলার গুলো সম্পর্কে  বিস্তারিত ভাবে জানার জন্য মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তরের নাম লিখে র্সাচ করলেই পাবেন। 

 

 

১) ফিল্ড স্টাফ পদে নিয়োগ

(সরকারি চাকরি)

পদঃ ১৭৫টি

     আদেনের শেষ সময় ১৫ মে


 

২) জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা

পদঃ ২৮৯

আবেদনের শেষ সময় ১৫ মে

 

 

৩) বাংলাদেশ পিডিপি বোর্ড এর ২টা

সার্কুলার

ক) পদ ৩০টি,  খ) ৮১৮টি

আবেদনের শেষ সময়…. ৭মে

 

 

৪) বাখরাবাদ গ্যাস

পদঃ ৭৬টি

আবেদনের সময় চলতি মাস থেকে শুরু।

 

 

৫)গোয়েন্দা পুলিশ বিভাগে নিয়োগ

পদঃ ২৮৯টি

আবেদনের সময় ১৫ মে

 

 

৭) সুরক্ষা সেবা অধিদপ্তরে নিয়োগ

পদঃ ২৯টি

আবেদনের সময় ৪মে


 

৮) আইন ও বিচার বিভাগ

পদঃ ৩০টি

আবেদনের সময় ১৫ মে

 

 

৯) সরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিয়োগ

পদঃ  ২৯টি

আবেদনের সময় ৪ মে

 

 

১০) ভূমি মন্ত্রণালয়েরে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২৩

পদঃ সংখ্যা ১২৮

আবেদন শুরু ১ তারিখ থেকে

 


job circular 2023, gov job circular 2023, সরকারি চাকরির সার্কুলার , ২০২৩ সালের সরকারি চাকরির সার্কুলার ২০২৩, নিয়েোগ বিজ্ঞাপন, সরকারি চাকরির তালিকা,

রবিবার, ২ এপ্রিল, ২০২৩

প্রাইমারিতে যারা কোটা পাবে না / বিবাহিতরা কি প্রাইমারির শিক্ষক নিয়োগে কোটা পাবে?

 বিবাহিতরা কি প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে কোটা পাবে?

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে যারা কোটা পাবে না।

প্রাইমারির শিক্ষক নিয়োগে নারী কোটা বণ্টণ।


বিস্তারিত

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের জন্য আগের মতো একযোগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ না করে বিভাগভিত্তিক বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে এবং পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ তারা প্রকাশ করেছে এ বিষয়ে বিস্তারিত আমাদের job helpline bd ইউটিউব চ্যানেলে বিস্তারিত দেওয়া আছে..


কোটার বিষয় নিয়ে ক্লিয়ারঃ

এখন প্রাইমারির কোটায় নিয়োগ নিয়ে বিভিন্ন মতবাদ প্রকাশ হলে অধিদপ্তর থেকে যে তথ্য তুলে ধরে তা প্রকাশ করা হল।

২০১৯ অনুসারে আগের মতো কোটাপদ্ধতি মেনে এবারও সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।


মহাপরিচালক শাহ রেজওয়ান হায়াত বলেন প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা-২০১৯ অনুসারে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়। নিয়োগ বিধিমালায় কোটার বিষয়ে যেভাবে বলা আছে তা অনুসরণ করে প্রার্থীদের নিয়োগ দেওয়া হবে।


সহকারী শিক্ষক পদে ৬০ শতাংশ নারী কোটা, 

২০ শতাংশ পোষ্য কোটা,

ও ২০ শতাংশ পুরুষ কোটা। 

এই তিন কোটার প্রতিটি ক্যাটাগরিতে অবশ্যই ২০ শতাংশ বিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক বা সমমানের ডিগ্রিধারী প্রার্থীদের নিয়োগ নিশ্চিত করা হবে, তবে এভাবে তিন কোটায় বিজ্ঞান বিষয়ের যোগ্য প্রার্থী পাওয়া না গেলে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে।


নারী, পোষ্য ও পুরুষ কোটা পূরণের ক্ষেত্রে  কোনো বিধি বা সরকারি সিদ্ধান্তে কোনো বিশেষ শ্রেণির কোটা নির্ধারিত থাকলে সেই কোটাসংক্রান্ত বিধান অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়া হবে।


পোষ্য কোটার ব্যাখ্যাঃ

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত আছেন বা ছিলেন, এমন শিক্ষকের অবিবাহিত সন্তান, যিনি সেই শিক্ষকের ওপর সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল সেই শুধু পোষ্যু কোটা পাবেন।

শিক্ষকের বিধবা স্ত্রী পষ্যু কোটা পাবে তবে স্বামী জীবিত থাকলে সে কোটার অন্তর্ভুক্ত নয়।


তালাকপ্রাপ্ত কন্যা,

যার বাবা-মা প্রাইমারির শিক্ষক ছিল তার কন্যা বিয়ের আগে পষ্যু কোটা পাবে।


যিনি সেই শিক্ষকের ওপর সম্পূর্ণভাবে নির্ভরশীল, এমন প্রার্থীরা পোষ্য কোটার সুবিধা পাবেন।


কোটা বণ্টণের এলাকাঃ

 প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে উপজেলা ও থানাভিত্তিক কোটা মানা হবে। উপজেলা বা থানাভিত্তিক শূন্যপদ অনুযায়ী কোনো কোটায় উপযুক্ত প্রার্থী পাওয়া না গেলে মেধাক্রম অনুযায়ী একই উপজেলা বা থানার উত্তীর্ণ সাধারণ প্রার্থীদের দিয়ে পদ পূরণ করা হবে।


এই ভাবে নিয়োগের প্রধান কারাণঃ

 ট্রান্সফারের জটিলতা এড়াতে এই ভাবে নিয়োগ দেওয়া হবে।


সাধারন প্রার্থীদের কোটা ছাড়া চাকরি হওয়া সম্ভবনাঃ

 ৮০ শতাংশ কোটা থাকায় সাধারণ প্রার্থীরা লিখিত পরীক্ষায় বেশি নম্বর পেয়েও চাকরি পান না। অথচ সাধারণদের চেয়ে কোটাধারীরা কম নম্বর পেয়ে চাকরি পেয়ে যান।


গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট দেখুন

রেলওয়ে রেলভবন

নং-৫৪.০১.২৬০০,০০৮.১১,০১৬,২৩-০৫ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মহাপরিচালকের কার্যালয় পরিবহণ ও বাণিজ্যিক বিভাগ বাংলাদেশ রেলওয়ে রেলভবন, ঢাকা। (w...

বেশি সার্চ করা পোস্ট গুলো