[BCS] বিসিএস পরীক্ষা দুই বারের বেশি নয় ও শিক্ষাগত যোগত্যার পরিবর্তনের চিন্তা করছে সরকার / আপডেত তথ্য

দুই বারের বেশি বিসিএস পরীক্ষা ও শিক্ষাগত যোগ্যতা পরিবর্তনের চিন্তা করছে সরকার, নির্দিষ্ট জিপিএ ছাড়া আবেদ যোগ্যতা থাকবে না এ বিষয় নিয়েও কথা হয়েছে বলে জানা গেছে জনপ্রশাসন ও পাবলিক সার্ভিস কমিশনের বিভিন্ন সূত্র থেকে।

তবে পরিবর্তনের এই বিষয় গুলো এখনো প্রাথমিক র্পযায়  বলে জানা গেছে ও চূড়ান্ত ভাবে পরিবর্তনের জন্য মতামত ও বৈঠকের বিষয় আছে বলে মতামত প্রকাম করেছে উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

অনার্স শেষ করা থেকে শুরু করে অনেকেই ৫ থেকে ৬ বার বিসিএস পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে পারে, ফলে অর্নাস পাশ করে যারা প্রথম বিসিএস পরীক্ষা দেয় তাদের সাথে যোগান দিতে পারে না প্রথম পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা, এতে বিশাল বৈষ্যম্যের সৃষ্টি হয়  এবং প্রথম পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা চাকরির সুযোগ কম পাচ্ছে মূলত এই সমস্যা সমাধানের জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়ার চিন্তা করছে সরকার।


নাম প্রকাশ না করে পিএসসির এক সদস্য থেকে জানা গেছে বিসিএস পরীক্ষা দুইবারে বেশি দেওয়া বন্ধ ও জিপিএর পরিবর্তন করারর জন্য সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে আলোচনা চলছে। এসব বিষয় নেতিবাচক বলে মনে করছে সরকার।

ভার্সিটি পরীক্ষাতে  এসব নিয়ম রয়েছে তাই চাকরির ক্ষেত্রেও এ সকল বিষয় অন্তর্ভূক্ত করা দরকার বলে মনে করছেন তারা।

পিএসসির একটি সূত্র বলেছে ব্যাংকে পরীক্ষা দেওয়ার জন্য নির্দিষ্ট একটা মাপকাঠি রয়েছে যেখানে বেশি সার্কুলারে প্রথম বিভাগ সিজিপিএ চাওয়া হয় সেখানে বিসিএস পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে শুধু মাত্র পাশ করলেই হয়।

বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে যেহেতু বাংলাদেশের বড় বড় পোস্টে দায়ীত্ব পালন করে তাই আমরা চাচ্ছি মেধাবিরাই এখানে আসুক।

ওই সূত্র আরও জানায়, বিসিএসে কীভাবে মেধাবীদের আনা যায় সে বিষয়ে গবেষণা চলছে। কেননা যারা বিসিএস পরীক্ষা দেন তাদের মধ্য থেকেই সচিব, পুলিশ প্রধানসহ সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হন। কাজেই মেধাবীদের বিসিএসমুখী করতে হলে সবাইকে পরীক্ষার সুযোগ দেওয়া বন্ধ করতে হবে। এজন্য একাধিকবার বিসিএস পরীক্ষার সুযোগ বন্ধের বিষয়েও আলোচনা চলছে।

পিএসরির চেয়ারম্যান বলেন আমরা চেষ্টা করছি মধাবিদের এখানে আনার জন্য, পরিবর্তনের কথা চলছে কিন্তু সিদ্ধন্ত হয়নি, সিন্ধান্ত সরকারের উপর নির্ভর করে আমরা এখানে মতামত প্রকাশের কেউ নয়, সরকার যা বলবে আমরা সেই মতামত গ্রহণের মাধ্যমে নতুন সার্কুলার প্রকাশ করো।

তিনি আরও বলেন, আপনি বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা কলেজে ভর্তির যোগ্যতা নির্ধারণ করছেন। তাহলে বিসিএস পরীক্ষার ক্ষেত্রে কেন যোগ্যতা নির্ধারণ করবেন না? যে ছেলে বা মেয়ে স্নাতকে কোনোভাবে পাস করেছে সে বিসিএসে টিকবে না। কেননা অ্যাকাডেমিক পরীক্ষার চেয়ে বিসিএস পরীক্ষার প্রশ্ন কঠিন হয়। কাজেই বিসিএসে যোগ্যতা নির্ধারণ করা সময়ের দাবি।

তথ্যটা প্রকাশ হওয়ার সাথে সাথে শিক্ষার্থীদের মধ্যে আলোচনার ঝড় হয়েছে, অনেকেই মতামত প্রকাশ করেছে শিক্ষাগত জীবনে সবচেয়ে খারাপ রেজাল্ট নিয়েও বিসিএস এ প্রথম হয়েছে এমন নজির অনেক আছে তাই এসব পরিবর্তন যৈক্তিক নয় বলে দাবি করেছে তারা। এমন পরিবর্তন যদি হয় ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির চাকরি পরীক্ষার ক্ষেত্রে অনেক পরিবর্তন আসতে পারে বলে তাদের চিন্তা।

আবার অনেকেই মতামত প্রকাশ করেছে যে, বিসিএস একটি বেকার তৈরির কারখানা যদি এমন পরিবর্তন আসে তাহলে অনেক কম সময়ে বেকারত্ব থেকে মুক্তি পাবে অনেকেই, তাই এটার পরিবর্তন ইতিবাচক বলে মনে করেন তারা।

সঠিক আপডেট সব সময় পেতে ফলো করে রাখতে পারেন ও আমাদের ইউটিউব চ্যানেল job helpline bd সাবসক্রাইব করে রাখতে পারেন।

আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।


tag: 

বিসিএস পরীক্ষায় দুই বারের বেশি সুযোগ না দেওয়ার চিন্তা।

 বিসিএস পরীক্ষা ২ বারের বেশি নয়, থাকছে নির্দিষ্ট জিপিএ।

বিসিএস পরীক্ষার শিক্ষাগত যোগ্যতার পরিবর্তন।

বিসিএস পরীক্ষা দুই বারের বেশি দেওয়ার শিদ্ধান্ত।

বিসিএর পরীক্ষার শিক্ষাগত যোগ্যতার কি কি পরিবর্তন হবে?

BCS JOB EXAM UPDATE NEWS 

BCS JOB AID


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

tnx for commet..

গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট দেখুন

( সিভিল সার্জনের কার্যালয়) স্বাস্থ্যসহকারী পদের প্রশ্ন সমাধান

             স্বাস্থ্যসহকারী পদের প্রশ্ন সমাধান           ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারীর নিয়োগ পরীক্ষা                  পদঃ স্বাস্থ্যসহকারী...

সবচেয়ে চাহিদার পোস্ট গুলো