বুধবার, ৩১ আগস্ট, ২০২২

নিবন্ধন পরীক্ষা কি? কত বছর পর্যন্ত দেওয়া যায়? NTRCA

 নিবন্ধন পরীক্ষা নিয়ে আজ আমরা বিস্তারিত আলোচনা করব

নিবন্ধন পরীক্ষা কি?
নিবন্ধন পরীক্ষা অনার্স ও এইসএসসি পাস করার পরে দেশের বেসরকারী নিবন্ধনকৃত এমপিও ভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ প্রক্রিয়া। শিক্ষকতার জন্য একটা সার্টিফিকেট বলতে পারেন এই পরীক্ষাতে পাস করতে পারলে বাংলাদেশের যে কোনো নিবন্ধনকৃত স্কুল, কলেজে, মাদ্রাসায় শিক্ষগতার জন্য আবেদন করতে পারবেন। আর আপনার স্কোর ভালো হলে এবং আপনার apply (subject) অনুযায়ী সীট ফাঁকা থাকলে চাকরিটা পাবেন আশা করা যায়।

বিন্ধন পরীক্ষায় পাস করতে পারলে চাকরি নিতে কি টাকা লাগে?
আগে টাকা লাগত, যখন কমিটির হাতে নিয়োগ দেওয়ার ক্ষমতা ছিল তখন। এখন NTRCA নিয়োগ দেওয়ার কারণে মেধাক্রম অনুযায়ী তারাই সিলেক্ট করে আর কমিটির হাতে নিয়োগহাত না থাকায় টাকা লাগেনা।

কয় পদের শিক্ষক নিয়োগ দেয়?
প্রভাষক থেকে শুরু করে জুুনিয়র মৌলবি পর্যন্ত সকল পদেই।

কত বছর পর্যন্ত নিবন্ধন পরীক্ষা দেওয়া যায়?
সরকারি চাকরির বয়স ৩০ বছর কিন্ত ৩৫ বছর পর্যন্ত নিবন্ধন পরীক্ষা দিতে পারবেন।

বেতন ভাতা কেমন?
সরকারি চাকরির বেতন সরকার দেয় নিবন্ধন করে যাদের চাকরি হয় তাঁদেরও বেতন সকার দেয় একদম সরকারি চাকরি, চাকরির বয়স শেষ হলে পেনশনও পাবেন ।
যেহেতু বেসকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের নিয়োগ দায়ীত্ব NTRCA নিয়েছে মানে কমেটির হাত নেই তাই সহজ করে দেখার কিছু নেই সরকারী চাকুরীজীবীরা যে সুযোগ পায় একই সুযোগ পাবেন যেমন ভাতা, বোনাস, পেনশন, ছুটি
বউ ও পাবেন হা হা না মানে চাকরি হলেত বউ....


জুনিয়র পদের জন্য HSC হলে হবে আর অনার্স/টেকনিক্যাল থেকে পাস করা সকলেই অবেদন করতে পারবেন সিনিয়র পদের জন্য,
(বিস্তারিত সার্কুলারে)


পরীক্ষার জন্য কি কি পড়ব কোন বই ফলো করব?
নিবন্ধনের জন্য পড়াশোনা অন্যান্য তুলনায় আমার কাছে একটু সহজ মনে হয় কারণ NTRCA থেকে নির্দিষ্ট একটা সিলেবাস দেওয়া থাকে নিয়ম করে পড়লে ভালো করা সম্ভব তবে বিগত সালের প্রশ্ন দেখলে ভাল একটা ধারণা পাবেন।
ও নিবন্ধনের জন্য গাইডও পাওয়া যায় সেখান থেকে সাহায্য নিতে পারেন,

নিবন্ধনে কয়টাতেে আবেদন করতে পারব?
একজন মানুষ কেবল মাত্র একটা post এ apply করতে পারবেন তবে আপনার যোগ্যতা মানে বার্তি সাটিফিকেট থাকলে আপনার সাবজেক্ট ছাড়াও অন্য বিষয়ে নিবন্ধন করতে পারবেন।
যেমন লাইব্ররীয়ান, ICT, শরীর চর্যা ঔ যে বাম ডান করান যে সেই স্যার, কম্পিউটার অপারেটর, ইটিসি।


সর্বশেষে যে সুবিধাটা সেটা হলো ভালো পরীক্ষা দিলে sms এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয় যে আপনার নিয়োগ অমুক যায়গায় কাগজপত্র নিয়ে সেই স্কুল/কলেজে দেখা করেন ওরা আপনাকে ডাকছে, মানে কোনো ভ্যাজাল ছাড়াই নিয়োগ,
skill গত পরীক্ষার নিয়োগ থেকে

নিয়মিত পোস্ট পেতে সাইটের একদম নিচে ফলো বাটন আছে ফলো করে রাখুন।

সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের ভবিষ্যৎ অন্ধকার

জাতীয় বিশ্ববিধ্যালয়ের ছাত্রদের নিয়ে লেখার ইচ্ছা অনেক দিন হলো কিন্ত লেখার সময়টা হচ্ছিল না, আজকে চেষ্টা করব জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে স্পষ্ট কিছু কথা বলার জন্য, আশা করছি আপনাদের কাজে আসবে।

শিক্ষাজীবনের শুরু থেকে আমরা যদি ফলো করি তাহলে বুঝতে পারব জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের পিছিয়ে থাকার প্রধান কারণ কোথায়।

SSC পাস করার পূর্বে  থেকে খুব কম সংখ্যক শিক্ষার্থীকে গাইডলাইন দেবার মতো পরিবার আছে। কোন গ্রুপে পড়াশোনা করলে ভবিষ্যতে সমস্যা হবেনা বা তেমন কোনো পরামর্শ আমরা পাইনা আমাদের পরিবার থেকে, যার ফলে আমরা যেটাকে ভাল মনে করি সেই গ্রুপে নিজেদের ইচ্ছায় পড়াশোনা শুরু করি।

HSC তে ভাল কলেজে পড়ার জন্য চেষ্টা করি এবং পরিবার থেকে বরাবরই ভাল রেজাল্ট করার চাপ দেয় যার ফলে ব্যাসিক না শিখে মুখস্ত বিদ্যা নিয়ে ভাল রেজাল্ট করলেও ভার্সিটির ভর্তি পরীক্ষাতে জিপিএ ৫ নিয়েও সিরিয়ালে নাম আসনা।

এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিক্ষার্থী ভাল রেজাল্ট করে বসে থাকে সোজা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার জন্য।

২০১৪ সালের পর থেকে জাতীয় বিশ্বদ্যিালয়ে আর ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়না, এটা  জাতীয় বিশ্বদ্যিালয়ের ছাত্রদের মেধা শূণ্য করার বড় একটা পথ।

যখন ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে চান্স পেতে হতো তখন শিক্ষার্থীরা চাকরির বাজারের পড়াশোনা সম্পর্কে ধারণা পেত যা তাঁদের অতিরিক্ত জ্ঞান অর্জনে সাহায্য করত কিন্তু সেটা আর হয় না।

ভাল রেজাল্ট নিয়ে ভাল সাবজেক্টে ভর্তি হয় পরে ব্যাসিক ভাল না থাকার কারণে অনেক শীক্ষার্থী ড্রপআউট হয়ে ঝড়ে যায়, আর যারা পাস করে বের হয় তখন বুঝতে পারে জীবনের মানে।

এঁদের মধ্যে ৫% শীক্ষার্থী পড়াশোনা করে ফলে তারা জীবনে ভাল কিছু করে আর বাকী সবার অবস্থা করুন।

বেশিরভাগ মানুষ মনে করে জাতীয় বিশ্বদ্যিালয়ে পড়া মানে জীবনের সব কিছু শেষ কিন্তু আমি বলব কপালের দোষে অনেকেই এখানে পড়তে আসে, আর বাকী সবাই নিজেদেরে ইচ্ছায় এখানে আসে শুধুমাত্র ছাত্র নামটা ধরে রাখতে, তাই জাতীয় বিশ্বদ্যিালয়ের দাম মানুষ কম দেয়।

 এখন বছরে ১০০ দিন ক্লাস হবেনা সেখানে কি শিখবে শিক্ষার্থীরা ?

শুখন ভাই একটা কথা বলেছেন যেখানেই পড়াশোনা করেন নিজেরটা নিজে পড়তে হবে ।

মঙ্গলবার, ৩০ আগস্ট, ২০২২

অনার্স কোন সাবজেক্টে করলে ভাল হয়? একদম সঠিক পরামর্শ

   


অনার্সে কোন বিষয়ে পড়াশো করলে চাকরির ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো হবে এই বিষয় নিয়ে আপনেরা অনেক প্রশ্ন করেন আজকে আমার বাস্তব জীবন থেকে সঠিক পরামর্শ  দেওয়ার জন্য চেষ্টা করব।

গরুত্বঃ অনার্স ছাত্রজীবনের এমন একটা অধ্যায় এখানে যদি ভুল করেন সারাজীবন আপনাকে মাশুল দিতে হবে তাই সঠিক সিদ্ধান্ত আপনার জীবনে জেনে বুঝে নেওয়ার জন্য এই লেখাটা।

যে বিষয়ে অনার্স করলে চাকরির বাজারে শতভাগ সুবিধা পাবেন এই বিষয়ে বিস্তারিত কথা বলার আগে আপনাদের ব্যাসিক কিছু প্রশ্নের উত্তর গুলো আগে দিচ্ছি ।


জাতীয় ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে পার্থক্য কি?

আমারকাছে জাতীয় এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় আলাদা কিছু নয়, এখন অনেকেই বলবে কি বাজে বলছেন আমি বলব এটাই সত্য কথা।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স না পেয়ে অনেকেই মনে করেন আমার জীবনটা শেষ কিন্ত না, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পড়েও আপনাকে চাকরির জন্য আদাভাবে পড়াশোনা করতে হবে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যারয়েও পড়াশোনা শেষ করে আপনাকে চাকরির জন্য পড়তে হবে।

পড়াশোনা শেষ করে ক্যারিয়ার গড়ারর জন্য যেখান থেকেই পড়াশোনা শেষ করেননা কেনো আপনার সার্টিফিকেটকে রাস্তা মনে করে নিজেকেই সব সামলাতে হবে। পাবলিকে পড়াশোনা করা মানে এই নয় যে পড়াশোনার পাঠ চুকিয়ে শেষ করে পাবলিক থেকে বের হওয়া মাত্র চাকরি আপনার কাছে এসে ধরা দিবে এমনটা নয়, চাকরির বাজারে ক্লাসের পড়াশোনার কোনো মূল্য নেই।


বাস্তব উদাহরণঃ

ডিগ্রী পাশ করে মাস্টার্স করে অনেকেই বিসিএস ক্যাডার হয়েছে আবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করে বেকারত্বের কারণে আত্যহত্যা করেছে এমন নজির অনেক আছে। আর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে হাজার হাজার ছাত্র দেশের সর্বচ্চ আসনে বসছে।

সোজা কথা, পড়াশোনা যেখানেই করেন না  কেনো চাকরির জন্য আবেদন করার যোগ্যতা থাকলেই হবে, আর চাকরির জন্য দক্ষ হতে হবে নিজেকে, তাই চাকরি আপনাকে খুঁতে হবনা চাকরি আপনাকে খুঁজবে।

যদি অনার্সে  চান্স না হয় তখন কি করব?

ডিগ্রীতে ভর্তি হন পরে মাস্টার্স করেন, সকল চাকরিতে আবেদন করতে পারবেন।

অনার্স চলাকালীন সময়ে দুইটা কাজ করুন আশা করছি  অনার্স শেষ করার সাথে সাথে কিছু হবে এমনকি বেকার বালার সময়টাও মানুষ পাবে না।      

      ১) কম্পিউটার কোর্স করুন।

বর্তমান সময়ে কম্পিউটার ছাড়া ভাবা যায় না, বাংলাদেশের পড়াশোনা শেষ করা একজন ছাত্রকে যখন বলা হয় যে কম্পিউটারে নিজরে নাম লেখুন তখন দেখা যায় কি-বোর্ডে বর্ণ খুঁজতেই দিন শেষ হয়ে যার আর কিছু বাদই দিলাম। শুধু বলব এটা দরকার।

    ২) চাকরি পড়াশোনা শুরু করা প্রথম থেকেই।

কিছু ছাত্র বা ছাত্রী আছে এরা অনার্সে এডমিট হওয়ার সাথে সাথে মুক্ত আকাশ পায়, যেখানে আমারা প্রথম ভুল করি। আমার কথাই বলি, ছাত্র হিসেবে খারাপ ছিলাম না, ইচ্ছা ছিল অনার্স  শেষ করেই চাকরিতে ডুকবো এমন কি পড়াশোনাও শুরু করে ছিলাম সেই ভাবে কিন্তু প্রেমে গোলে গেছিলাম পরে মাশুল দিতে হয়েছে, তাই অনার্সের পড়াশোনার পাশাপাশি চাকরির পড়াশোনা করা নয়ত অনার্স  শেষ করে বলতে হবে চাকরির জন্য কোন বই পড়তে হবে।      

 অনার্স শেষে করার পরে কাজ অর্থাৎ মনে করেন এবার অনার্স  শেষ করেছেন কিন্তু ফাইনাল রেজাল্ট পাননি, ফাইনাল রেজাল্ট পাওয়ার সাথে সাথে এই কোর্স  গুলো করে রাখুন শুধু বলব খুব ডিম্যান্ড যা পরে বুঝবেন।

         লাইব্রেরীয়ান কোর্স 

         ict  কোর্স 

         ক্রিয়া শিক্ষা কোর্স,

         চারুকারু কোর্স 

 এখন আমরা অনার্সের ডিম্যান্ডেবল সাবজেক্ট নিয়ে কথা বলব।

 নিচে  যে সাবজেক্ট গুলো উল্লেখ করেছি প্রতিটা বিষয় আমার কাছে অনেক দামী, কারণ চাকরির বাজারে হাতে নাম্বার থাকবে এখান থেকে, যা অন্য সাবজেক্টে অনার্স করে পাবেন না।

 বাংলা,

 ইংরেজি,

 গণিত,

 কম্পিউটার বিজ্ঞান,

  রাষ্ট্রবিজ্ঞান, 

  ইতিহাস,

  ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি,  

  প্রাণিবিজ্ঞান,

   ভূগােল ও পরিবেশ,

   আরবি

  ইসলামের ইতিহাস


BBA : আমি আপনাকে রিকুয়েস্ট করব যদি  কমার্সে পড়াশোনা করে থাকেন তাহলে যতটা সম্ভব অনার্সে আর কমার্স নিয়ে পড়ার দরকার নেই, কারণ প্রাইভেট পড়তে পড়তে জুতো খয় হবে কিন্তু চাকরির বাজারে গিয়ে পাবেন নতুন জীবন যেখানে আপনাকে নতুন ভাবে সব শুরু করতে হবে।

সোজা কথা চাকরি পরীক্ষার সময় আপনার ক ও আসবে না নিজরে সাবজেক্ট থেকে এমন কি হাই স্কুলে আপনার সাবজেক্ট না থাকায় জব ও হবে না।  শুধু বলব কমার্সের সাবজেক্ট ঘৃণা করি।

আর মেয়ে হলে বলব না, না কমার্সে সাবজেক্ট ছুঁবেন না।

তারপরেও যদি সাবজেক্ট পরিবর্তন না করতে পারেন তহলে কপাল খারাপে এই গুলোর একটা ‍নিতে পারেন।


১) বস্থাপনা

২) হিসাববিজ্ঞান

৩) মার্কেটিং

৪) ফিন্যান্স এন্ড ব্যাংকিং ।


বিজ্ঞান শাখা......কথা

সমাজবিজ্ঞান

সমাজকর্ম

অর্থনীতি

নৃ - বিজ্ঞান

ভূগােল ও পরিবে


BSS ( Bachelor of soci

দর্শন

ইসলামি শিক্ষা

আরবি 

রসায়ন

পদার্থবিজ্ঞান

পরিসংখ্যান

উদ্ভিদবিজ্ঞান

প্রাণিবিজ্ঞান

প্রাণ রসায়ন

পরিবেশ বিজ্ঞান

ভূগােল ও পরিবেশ

মনােবিজ্ঞান

মৃত্তিকা বিজ্ঞান

গার্হস্থ্য অর্থনীতি


আরো কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করুন...

 আমাদের ইউটিউব চ্যানেলের নাম job helpline bd  

প্রাইমারির শিক্ষক নিয়োগের নতুন সার্কুলার সম্পর্কে কিছু তথ্য

প্রাইমারির শিক্ষক নিয়োগ নতুন সার্কুলারে চার ক্যাটাগরিতে নিয়োগ দিতে পারে।

এই বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কিছু তথ্য প্রকাশ করেছে।


গতকাল প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে শিক্ষক বদলির বিষয়ে অধিদপ্তর সমাবেসে শিক্ষক বদলির সিন্ধান নিয়ে কথা বলার শেষে নতুন সার্কুলার বিষয়ে সহকারী সচিবকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন আগমী সার্কুলারে চার ক্যাটাগরিতে শিক্ষক নিয়োগ দিতে পারে অধিদপ্তর ।


ইতোমধ্যে শারীরিক ও ক্রিয়া শিক্ষক নিয়োগের বিষয়টা নিয়ে কথা বলা হয়েছে আবার ২০২২ সালের সার্কুলারের নিয়োগ কার্য শেষ না হতেই বিভিন্ন জেলা থেকে শিক্ষক সংকটের বিষয়টা বিবেচনায় আনা হয়েছে এর বিপরীতে আবার ত্রিশ হাজার শিক্ষক নিয়োগ কথা তুললে দুইটা সার্কুলারের নিয়োগ এক সার্কুলারে দেবার বিষয়টা নিয়েও কথা বলা হয়েছে। 



কোমলমতী শিশুদের পাঠের প্রতি মনযোগ লক্ষ্যে প্রাথমিক স্তরে প্রাক-প্রাথমিক যোগ করাতে চারুকারু টিচারের বিষয়টা নিয়েও কথা বলা হয়েছে।


আমরা চেষ্টা করছি প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের সকল সুযোগ দিয়ে ছোট থেকে মেধা বিকাশের ভূমিকা রাখতে এতে যে ধরণের পদক্ষেপ গ্রগণ করা দরকার হয় তা গ্রহণ করতে হবে।


ক) শারীরিক ও ক্রিয়া  শিক্ষকক।

খ) চারুকারু শিক্ষক।

গ) প্রাথমিক শিক্ষক।

ঘ) প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষক।


৪৫তম BCS বয়স বিবেচনায় রেখে রার্কুলার দেওয়ার কথাও উল্লেখ করেছে যদি বিষয়টা কার্যকর হয় তখন আপনেরা অন্য সার্কুলারেও চাকরির বয়স সিথীল পাবেন।


সরকারি চাকরির বয়স বৃদ্ধির বিষয়টা নিয়ে বিবেচনা করা হলেও এখনো সঠিক সিন্ধান্ত নেওয়া হয়নি।


ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য 


প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ভাইবা প্রস্তুতি

 প্রাইমারি ভাইবা অভিজ্ঞতা

প্রার্থী: মোঃ ইমরান আহম্মেদ ইমন

জেলা:নারায়ণগঞ্জ

লেখাপড়া: প্রাণিবিদ্যা বিভাগ,

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সিরিয়াল: ০৯


অনুমতি নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করলাম।

বোর্ড: বসেন...


বোর্ড: আপনার পড়াশোনা?

আমি: প্রাণিবিদ্যা বিভাগ, ঢাবি থেকে অনার্স করেছি। বর্তমানে মাস্টার্সের রেজাল্টের জন্য অপেক্ষা করছি। থিসিস করেছি ইলিশে হেভি মেটাল একুমুলেশন নিয়ে (থিসিসের কথা ইচ্ছে করেই বললাম, কারণ অন্য কিছুর প্রস্তুতি ছিল না)। 


বোর্ড: কী কী হেভি মেটাল পেলেন?

আমি: লেড, ক্যাডমিয়াম, কপার, আর্সেনিক, ম্যাঙ্গানিজ....


বোর্ড: লেড কতটুকু পেয়েছেন?

আমি: 0.02 ppm.


বোর্ড: মানবদেহে সর্বোচ্চ গ্রহণযোগ্য মাত্রা কত?

আমি: 0.05 ppm. 


বোর্ড:তাহলে তো লেড এর মাত্রা সেফ?

আমি: জি স্যার। তবে আর্সেনিকের পরিমাণ খুবই বেশি। 


ডিসি স্যার: আপনি কেন প্রাইমারিতে আসতে চান?

আমি: উন্নত বিশ্বে প্রাথমিক শিক্ষাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। আমি প্রাইমারিতে আসলে প্রাথমিক শিক্ষাকে উন্নত করার জন্য কাজ করবো।


ডিসি স্যার: আপনার কী এমন যোগ্যতা আছে যার জন্য আপনাকে চাকরি দিব?

আমি:বাচ্চারা আমাকে পছন্দ করে।


ডিসি স্যার: আপনার তো মাস্টার্স শেষ হয়নি। এখানে আসলে তো আপনি আর পড়াশুনার সুযোগ পাবেন না। 

আমি: আমি মাস্টার্সের রেজাল্টের জন্য অপেক্ষা করছি।


ডিসি স্যার: আপনার তো রেজাল্ট ভালো। প্রাইমারির বেতন কত জানেন? এই বেতনে পুষবে?

আমি: ১৩ গ্রেডে বেতন। পুষবে ইনশাআল্লাহ।


ডিসি স্যার:আচ্ছা আপনি বুকে হাত দিয়ে বলেন কতদিন এখানে থাকবেন?

আমি: স্যার আমার বিসিএস টার্গেট। যতদিন না হয় ততদিন থাকবো। 


বোর্ড:আচ্ছা আপনি আসতে পারেন। 


[সবাইকে ধন্যবাদ ও সালাম জানিয়ে কাগজপত্র নিয়ে বিদায় নিলাম।]

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ রিয়েল ভাইবা / primary job skills

         

              প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ

                    ভাইভা অভিজ্ঞতা 

                     সাবজেক্ট আরবি

                    ২০/০৬/২০২২ইং

                          

অনুমতি নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে সালাম দিলাম।


একটি শীটে বাংলা ও ইংরেজি একটি করে বাক্য লিখতে দিলো এবং আমার কাগজপত্রগুলো দেখলো।


প্রশ্ন : কোন সাবজেক্ট 

উত্তর : আরবি


প্রশ্ন : রসুলুল্লাহ সাঃ এর দুধমাতার নাম কি?

উত্তর : হালিমা সাদিয়া


প্রশ্ন : তাঁর বাড়ি কোথায়? 

উত্তর : তায়েফ


প্রশ্ন: বদর যুদ্ধ কত তারিখে হয়?

উত্তর : ১৭ই রমদান ২য় হিজরি 

প্রশ্ন: বদরের দূরত্ব কত?

উত্তর : মদীনা ৮০ মাইল 

(তাঁরা এই ব্যাপারে কনফিউজড ছিল)


প্রশ্ন: মদীনার সনদের কয়টি ধারা ছিল?

উত্তর : ৫৩ টি


প্রশ্ন: বিদায় হজ্বের ভাষণ কত তারিখে দেওয়া হয়?

উত্তর : ৯ই জ্বিলহজ্ব


প্রশ্ন: বিদায় হজ্জের গুরুত্বপূর্ণ অংশ বলুন

উত্তর : কৌলিন্য প্রথা, নারী অধিকার...

প্রশ্নকর্তা: চাকরের ব্যাপারে, অনুপস্থিতিতে ব্যাপারে কী বলছে?

উত্তর : সবগুলো বললাম।


প্রশ্ন: রসূলের বাড়ীর বর্তমান অবস্থা কী?

উত্তর: লাইব্রেরি 


প্রশ্ন: কুরআনের অর্থ জানেন?

উত্তর: জ্বি স্যার 


প্রশ্ন: সূরা বাকারার শেষ ৩ আয়াতের অর্থ বলুন।

উত্তর :স্যার মুখস্থ নাই আয়াত বললে অর্থ বলতে পারবো।


প্রশ্ন: একজন বিখ্যাত মুসলিম বীরের নাম বলুন?

উত্তর : খালেদ বিন ওয়ালিদ


প্রশ্ন: তাঁর উপাধি কী

উত্তর : সাইফুল্লাহ 


প্রশ্ন: অর্থ কী?

উত্তর : তরবারি 


আচ্ছা ঠিক আছে এবার আসতে পারেন।

ভাইভা বোর্ডে মোট ৩ জন ছিল ২ জন প্রশ্ন করছে একজন চুপ ছিল। 


=> দোয়া চাই আল্লাহ যেন চূড়ান্ত সফলতা দান করে।


প্রাইমারির ভাইভা অভিজ্ঞতা / primary job exam viva

        

             প্রাইমারির নিয়োগ পরীক্ষা

                     ভাইবা অভিজ্ঞতা 

                  প্রার্থীঃ রিক্তা শারমিন

                 জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

             

ঢুকে সালাম দিলাম। 

আসতে পারি? 

জ্বি আসুন।


আমি অনুমতি নেয়ার আগেই বসুন,আরে বসুন।

আমি- ধন্যবাদ। 


বোর্ড- আমার খাতায় লেখা বাক্যটা দেখে লিখুন।

আমি- কলম খুঁজছিলাম।


বোর্ড- এই নিন কলম। সবাই কলম নিয়ে চলে যাচ্ছে।


আমি- স্যার, আমার কলমটাও একজন নিয়ে আর দেয়নিবলেই কলম ছাড়াই ঢুকতে হলো।

বোর্ড- ইট্স ওকে।


আমার কগজপত্র দিলাম একজন দেখতে লাগলেন।


একজন মহিলা ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন।

উনি বললেন, 

আপনার পড়াশোনা কোথায়?

আমি- এল এল বি, এলএল, এম জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। 


বোর্ড - এতো ভালো সাবজেক্টে পড়েছেন,BCS এ হয়নি?

আপনি তো অনেক স্মার্ট, রেজাল্ট ভালো।


আমি- আসলে আমার ব্যারিয়ারগুলো বললাম।

তারা সবাই আমার সাথে খুবই হাসিমুখে গল্প করলেন।


বোর্ড- বলেন তো প্রাইমারি তে এখন এতো নারীদের নেয়া হয়, এটা কেনো?

আপনার মতামত দিবেন।


আমি- আসলে মেয়ারা ধৈর্য্যশীল হয়, তারা সব পরিস্থিতিতে খাপ খাইয়ে নিতে পারে। আর এটা মেয়েদের শক্তি, পজিটিভ শক্তি। তাদের এই শখ। এটা প্রাইমারীএডুকেশনে প্রয়োজন কারণ এখানে সরাসরি বাচ্চাদের সাথে ডিল করতে হয়। আর তা একজন মেয়েপক্ষে পক্ষে সুন্দর করে করা সম্ভব। আরও কিছু বলেছিলাম।


বোর্ড- আপনার উত্তর পছন্দ হয়েছে।

বোর্ড - বলেন তো নেসেসিটি অফ ল, কি? জুরিস্প্রুডেন্স কি?

আমি- বললাম। প্রথম অংশ ভালো পারিনি।


বোর্ড -আপনার রেজাল্ট খুবই ইম্প্রেসিভ।আপনি কি থাকবেন?? 

আমি- জ্বি স্যার। 


একটা কবিতা বা গান করেন। 

আমি কবিতা করেছিলাম।

আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে।


আমার আমার বলা শেষ হওয়ার সাথে সাথে তারা জিজ্ঞেস করলো আপনি কোন দলে কাজ করতেন।

আমি উদিচীর সাথে ছিলাম।


বোর্ড - আপনার উচ্চারণ আর বাচনভঙ্গি তে বোঝা যাচ্ছে। খুব সুন্দর আবৃত্তি আপনার।

আমাদের সময় কম তাই পুরোটা শুনতে পারলাম না।



তখন তারা বললো আপনার অনার্স এর মূল সার্টিফিকেট নাই কেনো?

 আমি -স্যার হারিয়ে গেছে। জিডি করেছি।

 

বোর্ড - ঠিক আছে ১৪/১৫ দিনের মধ্যে এনে আমাদের দেখাবেন আমি ঠিক আছে স্যার।


বোর্ড- আপনি আসুন।

সালাম দিয়ে চলে আসলাম।

বাকিটা আল্লাহর হাতে।


সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন 

সোমবার, ২৯ আগস্ট, ২০২২

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের অফিস সহায়ক পদের প্রশ্ন সমাধান


পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তের বিগত সালের অফিস সহায়ক পদের প্রশ্ন সমাধান দেখব আজকে।


পরিবার পরিকল্পনার নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে অনেক প্রশ্ন করেছিলেন আপনেরা প্রথমত কিছু ব্যাসিক প্রশ্নের উত্তর করে নিচ্ছি।


পরিবার পরিকল্পার অফিস সহায়ক পদের পরীক্ষা লিখিত না MCQ হবে?

উত্তরঃ গত নিয়োগ পরীক্ষা MCQ হয়েছিল এবং প্রার্থীর সংখ্যা কম হলে লিখিত পরীক্ষা নেয় আর বেশি হলে MCQ।


পরীক্ষা কত ধাপে নিয়ে চূড়ান্ত নিয়োগ শেষ করবে?

উত্তরঃ অফিস সহায়কে পরীক্ষা দুই ধাঁপে নিয়ে চূড়ান্ত নিয়োগ শেষ করে।

লিখিত বা MCQ, VIVA (ভাইবা) পরে চূরান্ত রেজাল্ট।


পরিবার পরিকল্পনার পরীক্ষা কবে হবে? 

উত্তরঃ ডিপার্টমেন্টাল সমস্যা থাকার কারণে সমস্যা হচ্ছে দ্রুত নিয়োগ কার্যক্রম শেষ করার চেষ্ট চলছে।

নোটঃ পরীক্ষার ৭ থেকে ৮ দিন আগে ফোনে ম্যাসেজ পাবেন।


পরিবার পরিকল্পনার নিয়োগ পরীক্ষার প্রস্তুতির জন্য কোন বই ফলো করব?

আমাদের চ্যানেলে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলা আছে দেখুন।  ইউটিউবে গিয়ে সার্চ করুন এভাবে↓

পরিবার পরিকল্পনার সাজেশন / job helpline bd


এখন আমরা পরিবার পরিকল্পনার বিগত সালের প্রশ্ন সমাধান দেখব



                    Update Time :

                  শুক্রবার, ২৭ আগস্ট,

                             2018


পদের নামঃ অফিস সহায়ক

পরীক্ষা হয়েছিলঃ_______

বিস্তারিত সমাধান নিচেঃ

পূর্ণমানঃ ৭০



                  ইংরেজি অংশ সমাধানঃ 

১. As it were এর অর্থ কী?

 উত্তরঃ যেন 


২. Plural of ‘Ox’ is?

 উত্তরঃ Oxen 


৩. Dhaka is becoming one of the —– cities in Asia. 

উত্তরঃ busiest


 ৪. Fortune ……….. the brave.

 উত্তরঃ favours (favors) 


৫. My father arrived while I …… the book. 

উত্তরঃ was reading 


৬. Had I known her, I……… her. 

উত্তরঃ would have met


৭. Choose the right preposition for the sentence. I count — your help. 

উত্তরঃ upon  


৮. We should have tasty and ……. meals. উত্তরঃ nutritious


৯. We waited until the plane ,,,

উত্তরঃ took off


১০. লেফটেন্যান্ট শব্দের সঠিক ইংরেজী বানান কোনটি ?

 উত্তরঃ lieutenant 


১১. Choose the correctly spelt word? উত্তরঃ leisure 


১২. Students should attend …… their lessons. উত্তরঃ to 


১৩. They arrived here after you ……….. উত্তরঃ had left 


১৪. Fill in the gap. ‘Slow and steady ….. the race. 

উত্তরঃ wins  


১৫. Choose the correct sentence:

 উত্তরঃ Yesterday, he went home. 


১৬. Teacher said, The earth …………. round the sun.

 উত্তরঃ moves 


১৭. What is the verb form of ‘Power”? উত্তরঃ Empower 


১৮. Recognise শব্দটির Noun কোনটি?

 উত্তরঃ Recognition 


১৯. Which is the correct spelling?

উত্তরঃ Restaurant  


২০. I wish I….. a king.

 উত্তরঃ were



সাধারণ জ্ঞান অংশ সমাধানঃ  

২১. বাংলাদেশে সর্বোচ্চ বীরত্বসূচক উপাধি কী? উত্তরঃ বীরশ্রেষ্ঠ 


২২. উত্তরা গণভবন অবস্থিত কোন জেলায়? উত্তরঃ নাটোর 


২৩. “শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস” কবে পালন করা হয়? 

উত্তরঃ ১৪ ডিসেম্বর 


২৪. বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন?

 উত্তরঃ তাজউদ্দীন আহমদ 


২৫. বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকার গঠিত হয়েছিল –? 

উত্তরঃ মেহেরপুরে 


২৬. সর্বশেষ অলিম্পিক ক্রীড়া কোন দেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে?

 উত্তরঃ জাপান 


২৭. বাংলাদেশ নিচের কোন আন্তর্জাতিক/আঞ্চলিক সংস্থার সদস্য নয়? 

উত্তরঃ আসিয়ান  


২৮. “নেলশন ম্যালাে” নামটির সাথে জড়িত দেশ হলাে -? 

উত্তরঃ দক্ষিণ আফ্রিকা 


২৯. এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় কোথায়?

 উত্তরঃ ম্যানিলা 


৩০. “বন্দর আব্বাস” কোন দেশের সমুদ্র বন্দর? উত্তরঃ ইরান



গণিত অংশ সমাধানঃ 

৩১. ৬০ জন ছাত্রের মধ্যে ৪২ জন ফেল করলে পাশের হার কত?

 উত্তরঃ ৩০% 


৩২. x+y=12 এবং xy=2 হলে xy এর মান কত? উত্তরঃ 35  


৩৩. কোন সংখ্যাটি অন্য রকম? 

উত্তরঃ ১৬ 


৩৪. একটি চতুর্ভুজের ৪ কোণের সমষ্টি কত? উত্তরঃ ৩৬০ ডিগ্রি 


৩৫. বৃত্তের কেন্দ্র থেকে পরিধির যে কোন বিন্দুর সংযােজক সরলরেখা কে কি বলে?

 উত্তরঃ ব্যাসার্ধ 


৩৬. একটি বর্গক্ষেত্রের এক বাহর দৈর্ঘ্য a মিটার হলে, এর ক্ষেত্রফল কত?

 উত্তরঃ a2 


৩৭. ১২৮, ৬৪, ৩২ —– ধারাটির ৮ম পদ কোনটি? উত্তরঃ ১  


৩৮. যে ত্রিভুজের তিন কোণ সমান তাকে কোন ধরনের ত্রিভুজ বলে? 

উত্তরঃ সমবাহু  


৩৯. ৪৩ থেকে ৬০ পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা কয়টি? উত্তরঃ ৫ 


 ৪০. ৩০ কে ২/৩ দ্বারা ভাগ করে ১০ যােগ করলে কত হবে?

 উত্তরঃ ৪০ 



৪১. ০.৪ x ০.০২ x ০.৮ = ?

 উত্তরঃ .০০৬৪ 


৪২. রহিম একটি কাজের ১/৫ অংশ করে ১ দিনে। সে ২০ দিনে কত অংশ কাজ করবে?

 উত্তরঃ ৪ অংশ 


৪৩. √0.0009 = কত?

 উত্তরঃ .03 


৪৪. ৪০০ এর ৪৯% = কত?

 উত্তরঃ196 


৪৫. পিতা, মাতা ও কন্যার বয়সের গড় ৩০ বছর। মাতা ও কন্যার গড় বয়স। ২৫ বছর হলে, পিতার বয়স কত?

 উত্তরঃ ৪০ 


৪৬, একটি ট্রেন ঘন্টায় ৬০ কি:মি: বেগে চলে। ২৪০ কি: মি: যেতে কত সময় লাগবে?

 উত্তরঃ ৪ ঘণ্টা 


৪৭. কোনটি বৃহত্তম?

 উত্তরঃ ২/৩ 


৪৮. কোন দুটি সংখ্যার যােগফল ১০ এবং গুনফল ২৪? 

উত্তরঃ ৪,৬ 


৪৯. ৪ বর্গফুট একটি বর্গাকার জায়গা ঢাকতে ৪ বর্গফুট ক্ষেত্রবিশিষ্ট কয়টি? 

উত্তরঃ ১ টি 


৫০. করিমের জন্মদিন ২৯ ফেব্রুয়ারি। তার জন্মগ্রহণের সালটি কত হতে পারে?

 উত্তরঃ ২০০৪

৫০. করিমের জন্মদিন ২৯ ফেব্রুয়ারি। তার জন্মগ্রহণের সালটি কত হতে পারে?

উত্তরঃ ২০০৪ 


বাংলা অংশ সমাধানঃ   

৫১. ‘ঘিলু’ শব্দের অর্থ কী?

 উত্তরঃ সবকটি 


৫২. চালাকের বিশেষ্য পদ কোনটি?

 উত্তরঃ চালাকি 


৫৩. কোনটি ‘ঘর’ শব্দের সমার্থক শব্দ নয়? উত্তরঃ বিপনী [বিপনী অর্থ = গাড়ি 


৫৪. বাংলা ভাষার মূল উৎস কোনটি?

 উত্তরঃ প্রাকৃত 


৫৫. কোন বাক্যটি শুদ্ধ?

 উত্তরঃ তুমি কি ঢাকায় যাবে


৫৬. ‘শােক’ শব্দের বিপরীত শব্দ কোনটি? 

উত্তরঃ হর্ষ 


৫৭. কোন বানানটি শুদ্ধ নয়?

 উত্তরঃ উর্দ্ধ = ঊর্ধ্ব] 


৫৮. ‘বিপদ এবং দু:খ একই সঙ্গে আসে’- বাক্যটি 

উত্তরঃ যৌগিক 


৫৯. মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক উপন্যাস কোনটি?

 উত্তরঃ হাঙ্গর নদীর গ্রেনেড 


৬০. ‘প্রমাদ’ শব্দের অর্থ কী?

 উত্তরঃ ভুলভ্রান্তি


৬১. নিচের কোনটি গুণবাচক বিশেষণের উদাহরণ?

 উত্তরঃ চৌকষ লোক 


৬২. খনার বচন কী সংক্রান্ত?

 উত্তরঃ কৃষি 



৬৩. কোনটি শুদ্ধ বানান?

উত্তরঃ নূন্যতম 


৬৪. বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে পুরাতন গ্রন্থ কোনটি?

 উত্তরঃ চর্যাপদ 


৬৫. ‘Wisdom’ শব্দের বাংলা প্রতিশব্দ? উত্তরঃ প্রজ্ঞা 


৬৬. ‘ভূত’ শব্দের বিপরীত শব্দ?

 উত্তরঃ ভবিষ্যৎ 


৬৭. বাংলা বর্ণমালায় মােট বর্ণ কয়টি?

 উত্তরঃ ৫০ টি 


৬৮. ভাষা আন্দোলনভিত্তিক ‘কবর’ নাটকের রচয়িতা কে?

উত্তরঃ মুনীর চৌধুরী 


৬৯. যা চিরস্থায়ী নয়’ – এর এক কথায় প্রকাশ কোনটি?

উত্তরঃ নশ্বর 


৭০. ‘বিনয়’ – এর বিপরীতার্থক শব্দ কোনটি? উত্তরঃ ঔদ্ধত্য


আরো পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান পেতে নিচের দিগে স্কোল করুন অথবা home  page এ ক্লিক করুন


ধন্যবাদ  




এত কম স্কোরে প্রাইমারি শিক্ষক হতে পারব ভাবিনি



প্রামিারির নয়োগ পরীক্ষা নিয়ে খুব চন্তা হয়?  এটা পড়েন সব চিন্তা শেষ

 প্রাইমারির নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে প্রতিদিনই দেখছি অবান্তর প্রশ্ন করছেন অনেকেই!

আমার রিটেনে এত, ভাইবাতে এত মার্কস পেতে পারি,

কোটা আছে বা নাই, বিজ্ঞান কোটা আছে বানাই,

সাধারন ছেলে বাবা মেয়ে উপজেলায় পোস্ট খালি এত

এখন আমার চাকুরি পাওয়ার সম্ভাবনা কেমন?

আবার এটাও যোগ করে দেন কেউ বাজে মন্তব্য করবেন না।

এটাতো গালি খাওয়ার মতোই পোস্ট। আমার নিজের ই" তো ইচ্ছে করে কিন্তু রাগ নিয়ন্ত্রণে রেখে আর কিছু বলিনা।
ভাই, বোন, এখানে কেউ ই আমরা কর্তৃপক্ষ নই যে আপনাকে গ্যারান্টি দিয়ে বলে দিবে আর কর্তৃপক্ষ এসব নিয়ে কোন তথ্য প্রকাশ করে না এত নাম্বার পেলে চাকুরিটা হবে ।

সত্যি কথা বলতে আমি এক সপ্তাহও ঠিকঠাক পড়ার সুযোগ পাইনি। তিন বছরের মেয়ে ও দেঁড় বছরের স্পেইশাল ছেলে বেবি সাথে সংসার ও কলেজের চাকুরি একা হাতেই সামলে আসলেই আমার পড়ার কোনো সুযোগ, সময় ,এনার্জি কোনোটাই ছিলো না।
যখন পরীক্ষা ঘনিয়ে আসলো তখন মিজানুর রহমানের স্যার এর বইটা বের করলাম। সম্ভবত এটা ১৮ সালে কিনেছিলাম।বই পড়তে বসলেই এক দিক থেকে মেয়ে আরদিকে ছেলের টানাটানিতে বই একদিনেই কয়খন্ড হয়ে গেল।

বাধ্য হয়ে বই রেখে মোবাইলে ইউটিউবের পড়ার ভিডিওগুলো দেখতাম। আর শুধু মাত্র বিগত বিসিএস এর প্রশ্ন গুলো ভাল করে পড়েছিলাম সত্যি বলছি এর বাইরে বেশি কিছু পড়তে পারিনি। তবে যা সময় পেয়েছিলাম মন দিয়ে ব্যাখ্যাসহ ভাল করে পড়েছি।

যাক এসব কথা আসল কথাই আসি। পরীক্ষার প্রশ্ন দেখে আমার কাছে মনে হলো বিসিএস মানের প্রশ্ন হয়েছে আবার মনে হল পড়াশোনা তো তেমন করিনি তাই হয়ত কমন আসেনি তাই যা পেরেছি তাই উত্তর করে চলে আসি কিন্তু আশা করার মতো কোনো পরীক্ষা হলো না।

ইউটিউব দেখে যা দাগাইছি মনে করে মিলালাম কাট মার্কস আসলো মাত্র ৪৭।
পরে অবশ্য কারেন্ট আ্যাফেয়ার্স দেখে মিলালে ৫২ হয়েছে। জানিনা সঠিক কত পাবো। কিন্তু এতেও কোনোরুপ আশা করিনি কেননা তখন জানতাম মতলব উত্তর দক্ষিন মিলে মাত্র ৩৯টি পোস্ট খালি আছে।

আর আমি আগেও প্রাইমারীর ভাইবা দিয়েছি আমার বাবার বাড়ি বাগেরহাট থেকে তখন মার্কস ৬০-৬২ ছিলো তাও জব হয়নি। তাহলে তো এবার আশাই করা যায় না।
তাই কোনোরকম মন খারাপ না করে আমার নিত্যদিন চলতে লাগলো। যেদিন শুনলাম রেজাল্ট দিবে সেদিন কেন জানি মনে হলো রিটেনে আমার পাশ করতেই হবে। সাথে সাথেই আল্লাহকে বললাম হে পরম করুনাময় তুৃমি সবকিছু জানো। আমার পরিস্থিতি তোমার থেকে ভালো আর কেউ বুঝেনা। আমার কীসে মঙ্গল আর কীসেই বা অমঙ্গল সবকিছুর তুমি অন্তর্যামী। আমার জন্য যদি প্রাইমারির জব ভালো না হয় দিওনা আমার কোনো দুঃখ নাই কিন্তু তুমি আমারে রিটেনে পাশ করাবা ই করাবা,করাতে হবেই হবে। এটাই আমার শেষ কথা। তুমি সকল ক্ষমতার অধিকারি যদিও আমার আশানুরূপ পরীক্ষা হয়নি কিন্তু তুমি চাইলে সব ই পারো।আমার এভাবে বলার দুইটা কারণ ছিলো।

আসলে শ্বশুর বাড়ি যে কি প্র্যারা সেটা না বলাই থাক...

এক, এইবার ই প্রথম শ্বশুরবাড়ি থেকে পরীক্ষা দিচ্ছি। আপন আবেদন করার সময় বলেছিলো পড়াশোনা করে পরীক্ষা দিলে আবেদন করে দিবো আর নয়তো দরকার নাই। কারণ এবার এখান থেকে দিচ্ছো সবাই জানে তুমি ভালো ছাত্রী কিন্তু এখন যে দুই বাচ্চা সামলিয়ে পরীক্ষা দিতে হবে এটা কেউ বুঝবেনা পাশ না করলে সবাই কথা শুনাবে।

দুই,পরীক্ষার আগেরদিন কলেজে ছুটি চেয়েছিলাম। আমার কলিগ দুজন ম্যাডাম ও পরীক্ষার্থী ছিলো কিন্তু তারা ছুটি চায়নি বলে এক স্যার বলেছিলো পরীক্ষা কি ওমুক ম্যাডাম একাই দিবে? আপনারা দিবেন না? দেখবোনে রেজাল্ট দিলে কে পাশ করে। কিন্তু ম্যাডাম দুজনের কেউ পাশ করেনি।

এই দুই কারনেই রেজাল্টের দিন বারবার আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লার কাছে বারবার বলছিলাম ইজ্জত, সম্মান দেওয়ার মালিক একমাত্র তুমিই। সবার কাছে আমার মুখ তুমি রাইখো। আমার জন্য এই জব ভালো না হলে দিওনা কিন্তু আমার সম্মান টা তুমি রাইখো আর কিছু চাইনা।

তারপর রেজাল্ট সিটে প্রথমবার আমার রোল নাম্বার খুজে পেলামনা। আমি একটু হাসলাম আর চোখ বুঝে আল্লাহকে বললাম নিশ্চয় তুমি যা করো আমার মঙ্গলের জন্য করো। তোমার সিদ্ধান্তই আমি খুশি মনে মেনে নিলাম। আলহামদুলিল্লাহ।

কিন্তু পরেক্ষনেই আমার আগের,পরের রোল টিকছে কিনা দেখতে যেয়ে দেখি আমার রোল ও আছে।
আমি নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলামনা চোখ কচলিয়ে আবার দেখলাম। না ঠিক ই তো আছে আমার রোল ই তো! তাহলে আগেরবার দেখলাম না কেন? আল্লাহই ভালো জানেন। তিনি সর্বজ্ঞ,মহাজ্ঞানী।

আমি রেজাল্ট দেখে সত্যিই কেঁদে ফেলেছিলাম। বার বার শুধু এটাই মনে হচ্ছিল ডাকার মতো ডাকলে তিনি অবশ্যই শোনেন। দেখছি এরকম একটা অবান্তর প্রশ্ন করছেন অনেকেই।

যারা বলে অনুমান করে অথবা শোনা কথা।
যাদের চাকুরিটা খুব বেশি প্রয়োজন গভীর রাতে নফল নামাজ পড়ে অসীম দয়াময়ের কাছে দুহাত তুলে চান। ডাকার মতো ডাকলে তিনি কখনো কোনো বান্দাকে খালি হাতে ফিরিয়ে দেননা।


পোস্ট কারী.. সাথী পারভীন


অডিটর নিয়োগ পরীক্ষার রিয়েল ভাইবা / junior oditor real viva skills

ভাইভা অভিজ্ঞতাঃ

 পদঃ  জুনিয়র অডিটর 

প্রতিষ্ঠানঃ হিসাব মহানিয়ন্ত্রকের কার্যালয় (CGA)

বোর্ড সদস্যঃ ৯ জন।

ডিউরেশনঃ ১২ থেকে ১৪ মিনিট।

অনুমতি নিয়ে রুমে ঢুকে সালাম দিলাম।   সালামের উত্তর দিয়ে আমাকে চেয়ারে বসতে বললেন এবং আমার কাগজপত্র চাইলেন।

বসে ধন্যবাদ দিয়ে কাগজপত্র স্যারের কাছে দিলাম।

প্রথমে আমার একটু অস্তিরতা লাগছিল পরে স্যারেরা আন্তরিকতা সাথে গ্রহণ করাতে ভাল লেগেছে ...

উপস্থিত ৯জনের প্রত্যেকেই প্রশ্ন করেছেন।

স্যার একটি কাগজে আমার স্বাক্ষর এবং রোল লিখতে বললেন। লিখার পর স্যার মাথা দিয়ে পজিটিভ সম্মতি জানালেন।


স্যারঃআপনি কোন সাবজেক্ট এবং কোথায় থেকে পগাশোনা শেষ করেছেন?

উত্তর করলাম।

স্যারঃ গণিতে পড়েছেন, টিউশনি করান?

আমিঃ জ্বি স্যার।

স্যারঃ যেহেতু গণিতে পড়াশুনা করেছেন তাই একটি অংক করতে দিব। পারবেন?

আমিঃ ইনশাআল্লাহ। 

স্যার উৎপাদকের একটি অংক করতে দিলেন।দ্রুত করে দিলাম।

অন্য একজন স্যার প্রশ্নকর্তাকে জিজ্ঞেস করলেন,"উনি কি পেরেছেন?"

স্যারঃ জ্বি স্যার।

দ্বিতীয় স্যারঃ আরেকটি অংক করেন।

একটা উৎপাদক করতে দিলেন।

আমিঃ করলাম।

স্যারঃ মুখেমুখে একটা ঐকিক নিয়ম ধরলেন।

আমিঃ মুখেমুখে হিসেব করে উত্তর দিলাম।

তৃতীয় স্যারঃ এবার অংক বাদ দেন। অন্য কিছু ধরেন।

স্যারঃ সাত মার্চের ভাষণ বলেন।

আমিঃ এক থেকে দেড় মিনিট বলার পরে স্যার থামিয়ে দিয়ে ভাষণের মেইন থিম কি জানতে চাইলেন। আমি একটু গুঁছিয়ে বললাম। আমার মনে হয় ২য় স্যার একটু মন খারাপ করেছে কারণ আমি জাতির পিতা বলিনি..


ফরিদপুর জেলায় বাড়ি হওয়ায় পদ্মা সেতু সম্পর্কে প্রশ্ন করেছেন।

স্যারঃ পদ্মাসেতুর গুরুত্ব সম্পর্কে বলুন।

আমিঃ ২মিনিটের মতো বললাম পরে স্যার বললেন থামুন বুঝতে পেরেছি পড়াশোনা করেছে।


স্যারঃOk.Say something about the Multipurpose Bridge Padma?

আমিঃ ২মিনিটের মতো ইংরেজিতে বললাম আসলে ইংলিশটা তেমন ভাল  ছিলাম না কিন্তু প্রশ্নটা কমন ছিল তাই ভাল করে বলতে পেরেছি।

স্যারঃ say something more about the economic development of the Padma Bridge.

আমিঃ ১মিনিটের মতো ইংরেজিতে বললাম। স্যার থামিয়ে দিয়ে অন্য প্রশ্নে চলে গেলেন।

স্যারঃ Brand your Zilla.

আমিঃ ২মিনিটের মতো ইংরেজিতে বললাম।


এরপর ২টা translation ধরলেন, 

২টাই পেরেছিলাম।


স্যারঃ আপনি কি কোথাও জব করেন?

আমিঃ এখনও কোথাও হয়নি স্যার। ট্রাই করছি।


স্যারঃ Best of luck.

আমিঃ Thank you sir.


স্যারঃ আচ্ছা আপনি আসুন।

আমিঃ ধন্যবাদ এবং সালাম দিয়ে বেরিয়ে আসলাম।


স্যারেরা খুবই আন্তরিক ছিলেন। আমিও ভাইভা দিয়ে pleased ছিলাম ।


অনেকেই প্রশ্ন করেছিলেন আপনি লিখিততে কত পেতে পারেন?

রিটেনে ৬০+ এর মতো মার্কস ছিলো। অবশেষে আল্লাহর কৃপায় সিলেক্টটেড হয়েছি।

সাই আমার জন্য দোয়া করবেন।

সর্বশেষ কথা হাল ছাড়বেন না, দেখবেন একটা সময় একাধিক জব হয়েছে।


ধন্যবাদ সবাই ভাল থাকবেন 

রবিবার, ২৮ আগস্ট, ২০২২

গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের অফিস সহায়ক পদের নিয়োগ প্রস্তুতি

গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের অফিস সহায়ক পদের নিয়োগ প্রস্তুতি ও কোন বই পড়বো সেই বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।


অফিস সহায়ক পদের প্রর্থীদের ব্যাসিক কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়ে আমরা মূল কথা শুরু করব।


প্রথমেই অনেকে প্রশ্ন করে অফিস সহায়ক পদের কাজ কি?

অফিস সহায়কের প্রধাণ কাজ অফিসের কাজে সহায়তা করা।

 অর্থাৎ অফিসের কাজকর্ম যেগুলো রয়েছে সেগুলো সহায়ক হিসেবে কাজ করা একজন অফিস সহায়কের প্রধান কাজ।

অফিসের আসবাবপত্র এবং রেকর্ড সমূহের সুন্দরভাবে বিন্যাস / সসাজানো সাধন করা এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা। অফিসের ফাইল এবং কাগজপত্র নির্দেশক্রমে একস্থান হতে অন্য স্থানে কিংবা অন্য অফিসে স্থানান্তরিত করা অফিস সহায়কের কাজ।

এক কথায় অফিসের সিনিয়র স্টাফদের অর্ডারে অফিসের হেল্পার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় একজন অফিস সহায়ককে।


অফিস সহায়ক পদে চাকরি পেলে পদান্নতি হয়?  

অফিস সহায়ক পদে যদি আপনার কর্মজীবন শুরু করেন পদান্নতি হবে আপনার ব্যবহার এবং কাজের দক্ষতা দেখে। তবে সকল মন্ত্রণালয় বা অধিদপ্তরের পদান্নতির গতি অতোটা দ্রুতার সাথে হয় না তবে প্রধান মন্ত্রীর কার্যালের অফিস সহায়কদের দুই বছর পরে এমনি পদান্নতি হয়।


আমার পড়াশোনা শেষ হয়নি যদি এখানে চাককরি হয় তবে কি পড়াশোনার সুযোগ পাবো?

সরকারি চাকরির যে কোনো পদে নিয়োগ পেলে আপনি যদি চান পড়াশোনা করবেন তবে পড়াশোনার জন্য সরকার সকল সুযোগ সুবিধা আপনাকে দেবে এক কথায় কোনো সমস্যা নাই।


পরীক্ষা লিখিত না mcq হবে?

পরীক্ষা এমসিকিউ হবে।


অফিস সহায়ক পদে নিয়োগ পরীক্ষার জন্য কোন বই পড়বো?

অফিস সহায়ক পদে চাকরির প্রস্তুতি নিতে কোন বই পড়বো?  কিভাবে পড়বো, কত ঘন্টা পড়বো? ইত্যাতি প্রশ্ন করে থাকেন এখানে একটা কথা বলি প্রতিটা চাকরি পরীক্ষার জন্য আলাদা বই কেনার দরকার নেই কারণ সকল পরীক্ষাতে একই প্রশ্ন হয় তাই বিগত সালের বিসিএস প্রশ্ন শেষ করে নিচের এই বইটা ফলো করতে পারেন↓↓

এই বইয়ে বিগত সালের সকল অধিদপ্তর, মন্ত্রণালয়ের অফিস সহায়কের চাকরি পরীক্ষার প্রশ্ন ব্যাখ্যাসহ পাবেন প্রশ্ন গুলো ভাল করে শেষ করতে পারলে আর কিছু দরকার হবে না।

সাম্প্রতিক 2/3 টা প্রশ্ন আসে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ফলো করতে পারেন ।

আরো বিস্তারিত ভাবে জানতে ইউটিউবে গিয়ে এভাবে সার্চ করুন  

অফিস সহায়কের সাজেশন / job helpline bd 

গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের বিগত সালের প্রশ্ন পাওয়া যায়নি তাই দেওয়া হল না


tag: গণযোগাযোগ অধিদপ্তর অফিস সহায়ক প্রশ্ন

গণযোগাযোগ অধিদপ্তর নিয়োগ প্রশ্ন

ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য

শনিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২২

রেলওয়ের পয়েন্টসম্যান, খালাসী, পদের নিয়োগ পরীক্ষার সাজেশন / railway job exam suggestion

রেলওয়ের নিয়োগ পরীক্ষার সকল প্রার্থীদের জন্য লেখাটা।


রেলওয়ের পয়েন্টম্যান ও খালাসী পদের নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান চেয়ে অনেকেই রিকুয়েস্ট করেছিলেন কিন্তু বিগততে এই পদের কোনো পরীক্ষা হয়নি তাই প্রশ্ন দিতে না পারলেও আমরা কিছু কথা বলবো ইনশাআল্লাহ্। 

যারা রেলওয়ের কর্মী হতে চান তারা গুরুত্ব দিয়ে পড়েন কাজে দেবে।

রেলওয়ের অনেক বড় একটা নিয়োগ পরীক্ষা চলছে।

ইতোমধ্যে একটা পদের পরীক্ষার চূড়ান্ত রেজাল্টও প্রকাশ করেছে কিন্তু মজার বিষয় হলো,, বাংলাদেশের ইতিহাসে রেলওয়ের নিয়োগ পরীক্ষাতে সবচেয়ে বেশি দুর্নীতির রেকর্ড থাকলেও 2022 সালের এই নিয়োগ কার্যক্রম তারা যেভাবে শেষ করেছে তা রেলওয়ের নিয়োগের বড় একটা ইতিহাস করেছে।


রেলওয়ের নিয়োগ পরীক্ষায় চল্লিশ পার্সেন্ট কোটা থাকলেও এবার সচ্ছ নিয়োগ হওয়াতে অনেক সাধারণ প্রর্থী বেকার জীবন থেকে মুক্তি পেয়েছে তাই আগের কথা না ভেবে এই পরীক্ষটা ভালো ভাবে দেওয়ার চেষ্টা করুন।


এখন প্রশ্ন কি ভাবে প্রস্তুতি নিবো রেলওয়ের নিয়োগ পরীক্ষার জন্য?

এই প্রশ্নটার উত্তর সত্যি জটিল কিন্তু সহজ ভাবে আমি বলার চেষ্টা করবো।

রেলওয়ের বিগত অনেক পরীক্ষা হয়েছে সে কথা বাদই দিলাম।

2022 সালের স্টেশন মাস্টার  

পদের যে পরীক্ষা হলো সেই প্রশ্নটা আশা করছি যারা পরীক্ষা দিবেন রেলওয়েতে তারা সবাই দেখেছেন, এখন কথা হলো প্রশ্ন গুলো কি বিগত বিভিন্ন চাকরি পরীক্ষার ছিল না নতুন প্রশ্ন ছিলো?


যদি বলেন, আপনি বলেন ভাই প্রশ্ন কোথায় থেকে কমন ছিলো?  আমি বলব চাকরিতে টেকার মত সব প্রশ্ন হুব হু কমন ছিল বিগত বিভিন্ন চাকরি পরীক্ষার প্রশ্ন থেকে এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন কমন ছিলো বিগত বিসিএস থেকে।


ভাই রেলওয়ের নিয়োগ পরীক্ষার জন্য একটা বই সাজেস্ট করেনঃ


চাকরি পরীক্ষার জন্য আলাদা আলাদা বই কেনার দরকার নেই বিগত রেলওয়ের প্রশ্ন গুলো আগে শেষ করুন পরে বিসিএসসহ pcs এর যত প্রশ্ন আছে শেষ করুন।


নোটঃ  কোন কোন অধ্যায় ভাল করে পড়ে শেষ করতে হবে তা আমাদের চ্যানেল job helpline bd তে দেওয়া আছে দেখেনিন।


ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য 






গুরুত্বপূর্ণ পোস্ট দেখুন

রেলওয়ে রেলভবন

নং-৫৪.০১.২৬০০,০০৮.১১,০১৬,২৩-০৫ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার মহাপরিচালকের কার্যালয় পরিবহণ ও বাণিজ্যিক বিভাগ বাংলাদেশ রেলওয়ে রেলভবন, ঢাকা। (w...

বেশি সার্চ করা পোস্ট গুলো